Xxx sex dhon

আমার আপুর দুই মেয়ে আর এক ছেলে। বড় মেয়ের বয়স ১৫ তারপর ছেলে বয়স ৮ আর সবচেয়ে ছোট মেয়ের বয়স ৪ বছর। যখন আপুর বাসায় পৌছলাম তখনও দুলাভাই অফিস থেকে আসেনি। ফ্রেশ হয়ে খাওয়া দাওয়া করে কিছুক্ষন আপু আর ভাগ্নে ভাগ্নিদের সাথে আড্ডা মারলাম। কিন্তু পানি যেভাবে গড়াতে শুরু করল সেটা বলা দরকার। আপুদের সংসার ছোট তো সেই সাথে বাসাটাও তেমন বড় না। দুই রুমের ঘর, দুইটা বেড, খাওদা-দাওয়া, ভাগিনা-ভাগ্নেদের পড়া সব এক জায়গায়। তো এক রুমে আপু আর দুলাভাই সাথে ছোট ভাগ্নি আর অন্যটাতে বড় ভাগ্নি ও ভাগিনা থাকে। রুমের বাইরে ওদের বাথরুম। তো দুপুরে ফ্রেশ হতে গিয়ে যখন বাথরুমে যাই হঠাৎ খেয়াল যায় এক কোনায় বালতিতে রাখা কাপড়ের দিকে। দেখি ওখানে একটা কামিজ, সেমিস, সালোয়ার আর ব্রা রাখা। সাথে ভাগ্নের গেঞ্জিও ছিল। মাঝে মাঝে খেয়াল করে দেখবেন যে, আকষ্মিক ভাবেই আমাদের ছেলেদের বাড়া দাড়িয়ে যায়। কেননা এখানে আমার বাড়া দাড়ানোর কোন কারনই নেই। কেননা কাপড়গুলো আমার ভাগ্নির। যাই হোক আমি ভেতরের শয়তানকে দমাদে পারলাম না আর ভাগ্নির ব্রা নিয়ে নাড়াচাড়া করে পরে বের হয়ে গেলা। বলে রাখা ভালো আমার ভাগ্নির বয়স যদিও ১৫ বছর হয় তার শরীরের গড়ন অনেককে হার মানিয়ে দেবে। সুস্দরী, লম্বা, ভারি শরীর আর যেটা বললেই নয় এই বয়সেই তার দুধের সাইজ ৩৬” ছাড়িয়ে গেছে। ন্ধ্যেবেলা দুলাভাই আসলো এরপর সবাই একসাথে নাস্তা করলাম। চিন্তা করলাম একটু বাইরে থেকে ঘুরে আসি। ঘোরাঘুরি শেষে বাসায় ফিরে আসলাম। মাথার এক কোনায় বাথরুমের ঘটনা তখনও রয়ে গেছে। চিন্তা করতে চাচ্ছিলামনা তারপরও অদ্ভুত এক কারনে বাড়া দাড়িয়েই আর কিছুক্ষন পর পর কামজুস বের হচ্ছে। ভাগ্নির সামনে টেস্ট পরিক্ষা শুরু হবে বলে পড়ছিল। আমি কিছু অঙ্ক করতে ওকে সাহায্য করলাম। আর দেখতে দেখতে রাত হল। রাতে খাওয়া শেষ করে সবাই কিছুক্ষন টিভি দেখলাম। এরপর যে যার মত শুতে। ব্যবস্থা হল আমি আর ভাগ্নে এক বিছানাতে শোব। স্বাভাবিকভাবেই ভাগ্নি শুবে নতুন নতুন বাংলা চটি বিছানা পেতে। আমরা শোবার পর ও বাতি নিভিয়ে বই-খাতা নিয়ে পড়ার রুমে গেল পড়তে। এরপর থেকেই মাথা আবার গোলাতে শুরু করল। চিন্তা করতে লাগলাম কিভাবে safe side এ থেকে কিছু বিনোদনের ব্যবস্থা করা যায়। আর চিন্তা করছিলাম এতো বাজে চিন্তা আমি করতে পারছি কিভাবে। তারপরেও প্রথম চিন্তাকে অগ্রাধিকার দিলাম বেশি। স্থির করলাম আমির ভান ধরে থাকবো আর লুঙ্গির ভেতর দিয়ে বাড়াটা দাড় করিয়ে রাখবো। এরপর দেখবো ভাগ্নি এটা দেখার পর কি করে। যেই ভাবা সেই কাজ। বাড়াতো দাড়ানোই ছিল আর গায়ের চাদরটাকে এমনভাবে সেটিং করে মুখের উপর দিলাম যাতে ভাগ্নি রুমে আসার পর আমি তাকে দেখতে পাই। অপেক্ষার পালা শেষই হয় না। প্রায় এক দেড় ঘন্টা পর পড়ার ঘরে চেয়ার টানার শব্দ শুনে আমার বুকের স্পন্দন জোড়ে জোড়ে বাজতে শুরু করলো। বুঝতে পারলাম ভাগ্নি পড়ার ঘরের বাতি নিভিয়ে বাথরুমে গেছে। আমি দাত মুখ খিচে শুয়ে আছি। ভাগ্নি রুমে আসলো। বই খাতা টেবিলে রেথে বাতি জ্বালিয়ে নিজের জন্য নিচে বিছানা গোছালো এরপর বাতি বন্ধ করতে গিয়ে দেখি থমকে দাড়িয়েছে। আমার হৃৎপিন্ড তখন ৪ লিটার করে রক্ত পাম্প করছে। আমি একটু নাক ডাকার অভিনয় করলাম। এরপর দেখি ও টেবিলের কাছে গিয়ে বই খাতা নাড়াচাড়া করছে। পরে বুঝতে পারলাম অহেতুক শব্দ করছে। আমিও স্থির হয়ে পরে রইলাম। কিন্তু আমাকে হতাশ করে ও নতুন নতুন বাংলা চটি নিভিয়ে শুয়ে পরলো। বাতি নেভানোর পরে অনেকক্ষন কিছু দেখলাম না। আস্তে আস্তে বাইরের আলোতে রুমে আবছা দেখতে পেলাম ভাগ্নি বিছানাতে অস্থিরভাবে এপাশ ওপাশ করছে। আমি শুয়ে রইলাম। আবারো আমার বুকে রুক্ত সঞ্চালন করে ও ১০-১৫ মিনিট পর উঠলো আর বাতিটা আবারো জালালো। এরপর ও টেবিলের কাছে গিয়ে দেখি হাতে বই নিয়ে দাড়িয়ে আছে। আমি চাদরের নিচ থেকে ওর কোমড় পর্য্নত দেখতে পাচ্ছিলাম বলে বুঝতে পারছিলাম না আর নড়তেও পারছিলাম না। কিন্তু দেখি ও দাড়িয়ে আছে কোন নড়াচড়া নেই। তখন আমি বুঝলাম যে ও আসলে আমার বাড়াটা লক্ষ্য করছে। সমানে ঘামছি আমি। একটু নড়ে উঠলাম আর ঘুমের মধ্যে মানুষ যে ধরনের আওয়ার করে সে রকম আওয়াজ করে বাড়াটাকে একটু হাত দিয়ে নাড়া দিলাম। দেখি যে ওর ধ্যান ভেঙ্গেছে। কিন্তু আমি কিছুতেই বুঝতে পারছিলাম না যে ও কি করতে যাচ্ছে। খুব চাচ্ছিলাম যে ও এসে একটু বাড়াটা হাত দিয়ে ধরুক। কিন্তু কল্পনা আর বাস্তবের ফারাকটা যাচ্ছেই না। পরে সেদিনের মত ও বাতি নিভিয়ে শুয়ে পড়লো। আমিও ঘুমিয়ে পরলাম ঘুম থেকে উঠে দেখি ভাগ্নে ভাগ্নি কেউ স্কুল থেকে আসেনি। নাস্তা করে পেপার নিয়ে বসলাম। ১টার দিকে দুজনই আসলো। দুপুরে খাওয়ার সময় আপুকে বললাম যে আমি রাতে চলে যাবো। তখন ভাগ্নি হঠাৎ করে বলল যে, না মামা আজকে যেও না, আমাকে কিছু physics আর অংক দেখিয়ে দিতে হবে, ২/৩ দিন থেকে যাও। আপুও সায় দিল। আমি বুঝতে পারছিলাম না এটাকে আমি পজেটিভ সাইন নতুন নতুন বাংলা চটি নাকি শুধু পড়ানোর জন্য। কিন্তু হাতে কোন কাজ না থাকায় থেকে যাওয়ার প্লান করলাম। রাত পর্যন্ত ওকে পড়ালাম। এরপর খাওয়ার শেষে হালকা গল্পগুজব করে এর দিকে বিছানায় গেলাম। ও যথারীতি পড়ার রুমে পড়ছে। আমি অনেক জল্পনা কল্পনা করতে করতে আমার বাড়াটাকে হাত দিয়ে ঘসছিলাম। পড়ার রুমের শব্দ পেয়ে আমি জলদি আমার বাড়াটাকে আগের মত সেট করে ঘুমের ভান ধরলাম। দেখি ও এসে আমাকে ডাকছে “মামা” এই “মামা” দেখ শোয়ার সাথে সাথে এমন ঘুম …

Xxx sex dhon-79

Maya man hi man soch rahee thee ki mere darwaje band karne ki awaj se Arun samajh jayega ki mai ghar par laut kar aa chukee hun.

Maya ghar par gusne ke bad apne aap ko shishe me dekhne lagee aur paya ki uska safed blouse apni gore hathon se sahee match kiya hai aur blouse ke andar wala lace laga hua kale bra paseene se bhig kar aur bhi chamak raha hai.

Dekhna humlog theek thaak rahenge aur tum jaldee hi theek ho jaogee” Phir mai maa ko le karke ghar wapas aa gaye. Phir Maya ko kitchen se awaj sunai pari ki Arun omlet aur coffee bana rha hai.

Ghar aa kar maine maa ko sofe par baitha diya aur ghar ki aur khas kar kitchen ki safai karma shuru kar diya. Thori der ke bad Arun ek tray me omlet, coffee aur kela lekar apne maa ke pas aaya aur tray ko table par rakh diya.

এরপরও সে নিরুত্তর। বুঝলাম আর দেরি করা ঠিক হবে না। ওর কোমল ঠোটে আমি চুমু বসালাম নতুন নতুন বাংলা চটি নিচের ঠোটটা চুষতে লাগলাম। ওর কোন response নেই তবে কান্না বন্ধ হয়েছে। যথেষ্ট ভাল লক্ষন। আমি ওর ঠোট চুষে চলেছি, জিহ্বা দিয়ে ওর জিহ্বা ঘষছি, নাকের ফুটো ঘষছি। এরই মধ্যে ওর হাতের গ্রীপ আমার বাড়ার উপর আস্তে আস্তে বারছে। ও সালোয়ার কামিজ পড়া ছিল। অনেক কষ্টে কামিজের ভিতর হাত গলিয়ে ওর অপরিপক্ক দুদুগুলো ছুলাম। উফফফফ কি যে সুখ আর ডান হাত দিয়ে আমার বাড়ার উপর ওর হাতটাকে উপর নিচ করতে লাগলাম। আমার বাড়ার রসে ওর হাত খুব দ্রুতই উঠা নামা করতে লাগলো। কিন্তু হ্যান্ডজবের চিন্তা বাদ দিয়ে আমার মাথায় চলে এল ব্লোজবের চিন্তা। কে না চাইবে?

কিন্তু ওকে তো আর বলা যাবে না। করাতে হবে। আমি কামিজের ভিতর থেকে হাত বের করে ওকে দাড় করালাম। আর আমার লুঙ্গিটা একটানে খুলে ফেললাম। এভাবেই ওকে শক্ত করে জড়িয়ে ধরলাম। আমার চেয়ে খাটো হওয়াতে আমার বাড়া ওর নাভির আশে পাশে গুতোচ্ছে। তাই ওকে আলতো করে শুন্যে উঠিয়ে আমি বাড়া দিয়ে ওর গুদের মধ্যে গুতো দিতে লাগলাম। অবশ্যই কাপড়ের উপর দিয়ে। বেশ কাজ হল। ওর নিশ্বাষ আস্তে আস্তে ঘন হতে লাগলো। পরিবেশ পরিস্থিতি বিবেচবনা করে ওর কাপড় খুলতে পারছিলাম না। সেতো আপনারা বুঝতেই পারছেন। এভাবে অনেক সময় চুমোচুমি করার পর ওকে বিছানায় বসিয়ে আমি আমার বাড়াটা ওর মুখের কাছে ধরলাম আর একহাত দিয়ে ওর ঘারে হাত বুলাতে লাগলাম। বাড়া ওর ঠোটে বসিয়ে ছোয়ানোর সাথে সাথে ও মুখের মধ্যে নিয়ে নিল আর চুষতে লাগলো। আমিতো ওর উন্নতি দেখে অবাক এই বয়সেই ও ভালো ব্লোজব দেয় শিখে ফেলেছে। আহহহ এতো সুখ আমি বলে বোঝাতে পারবোনা। ওর মুখের মধ্যেই আমি আস্তে আস্তে ঠাপাতে লাগলাম। বুঝতে পারছি যে, বেশিক্ষন ধরে রাখতে পারবোনা তাই ওকে জিজ্ঞেস করলাম “আমার এখন বের হয়ে যাবে”। আমি কি তোমার মুখের মধ্যেই ফেলবো?এতটা stress আমি এর আগে কখনো পাই নি। ও গন্ধ নেয়ার চেষ্টা করছিল। কিছুক্ষন পর কিছু একটা স্পর্শ পেলাম। বুঝতে পারলাম যে ও হালকা করে জিহ্বা দিয়ে লিক করছে। আমি ঠিক কলাম এখনই সময় কিছু করার। আমি চট করে “উ…আউ…কে” আওয়াজ দিয়ে উঠে বসলাম। আর ও দেখি যে ধরহীন মুরগীর মত কাপছে। আমি উঠে বাতি জ্বালালাম। জিজ্ঞেস করলাম কি হচ্ছে। ও নিরুত্তর। ওর চোখে অশ্রুর বন্যা। আমি ওকে টেনে তুললাম আর ওর বিছানায় নিয়ে বসালাম। এরপর বাতিটা নিভিয়ে ওর পাশে গিয়ে বসলাম। বললাম এখন আমার কোর্টে। এখন আমার পালা। ও কান্না করেই চলেছে। আমি এক ফাকে গিয়ে আপুর রুমের অবস্থা বুঝে আসলাম। কারন আমাদের রুমতো লক করা যুক্তি সংগত হবে না। দরজা ভিরিয়ে ওর পাশে বসে ওকে জিজ্ঞেস করলাম কি সমস্যা?ও কিছু বলছে না। আমি বুঝতে পারলাম পরিস্থিতিটাকে ওর জন্য কিছুটা নরমাল করতে হবে। আমি লুঙ্গি কোমড়ের উপর উঠিয়ে উর পাশে বসলাম। আর ওর একটা হাত নিয়ে আমার বাড়ার উপর রাখলাম। শুধালাম “এবার খুশি”?Tum mere sath agle bar jaoge.” Maya soch rahee thee ki kaise apne chote bete ko manaugee ki agar sab ke sab koi ghar chor kar chala jayega to ghar ka kya hoga?Yehee sab sochte sochte Maya ne apne ghar ka darwaja kholee aur ghar ke andar dakhil hue aur jor se darwaja ko band kar diya.Hospital jyada dur nahee hai aur mai tumko gari se le chalta hun.” Dono bhag kar car se hospital gaye aur emergency room me dakhil ho gaye.